1. atikur.bdco@gmail.com : admin :
চে গুয়েভারার জীবনী - www.atikurbd.com
শিরোনাম :
স্বাস্থ্যমন্ত্রী, মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের অপসারণের দাবিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয় ঘেরাও বিষন্নতায় ঘেরা এই পৃথিবী করোনায় আরো ৪১ জনের মৃত্যু তালিকাভুক্তির দাবিতে বার কাউন্সিলের সামনে শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের অবস্থান, অসুস্থ-৭ এখনই স্বাভাবিক বিচার ব্যবস্থা ফিরছে না আদালতে। করোনায় আরো ৫৫ জনের মৃত্যু রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের সিন্ধান্ত বাতিল করে জাতীয়স্বার্থে পাটকল চালু রেখে আধুনিকায়ন ও লাভজনক কর -প্রগতিশীল সংগঠনসমূহ বিক্ষোভ সমাবেশে সিপিবি’র নেতৃবৃন্দ রাষ্ট্রীয় পাটকলসমূহ বন্ধ ঘোষণা মুক্তিযুদ্ধের অঙ্গীকারের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা একাধিকবার বিদ্যুৎ-জ্বালানির দাম বাড়ানোর স্বার্থে সংসদে বিল উত্থাপনের প্রতিবাদ সিপিবির আহুত ভালোবাসা – মোহাম্মদ জাফর সাদেক সরকারের গণবিরোধী সিদ্ধান্তের বিরদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে সিপিবি’র ডাক ২৪ ঘন্টায় করোনায় আরো ৪০ জনের মৃত্যু পৃথিবীর সৃষ্টি রহস্য – পর্ব ১ রাষ্ট্রায়ত্ব পাটকল বন্ধের নয়া ষড়যন্ত্রে বাম জোটের উদ্বেগ ও প্রতিবাদ দালান জাহান মোঃ জাফর সাদেক জন্মদাগ – মোঃ জাফর সাদেক করোনায় ২৪ ঘন্টায় আরো ৩৯ জনের মৃত্যু ভার্চুয়াল আদালত অব্যাহত রাখতে সংসদে খসড়া আইন উত্থাপন সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর ৮৫-তে পদার্পণ করোনাকালে শ্রমিক ছাঁটাই-নির্যাতন বন্ধের দাবি সাংগ্রাম, গৌরব , উন্নয়ন, ও ঐতিহ্যের ৭১ বছর ইতিহাস….. দেশে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা দেড় হাজার ছাড়াল দেশের ১০ জেলার ২৭ এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করোনায় ২৪ ঘন্টায় ৩৯ জনের মৃত্যু করোনায় ২৪ ঘন্টায় ৩৭ জনের মৃত্যু সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও সাংবাদিক কামাল লোহানী মারা গেছেন নিপুন নগরী ইসরাত জাহান মোঃ আতিকুর রহমান রোববার তিন ঘণ্টা সূর্যের ওপর অন্ধকার থাকবে! বীর মুক্তিযোদ্ধা মনজুর আলী ননতুর মৃত্যুতে সিপিবি’র শোক প্রকাশ ব্যর্থ প্রেম – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় করোনাভাইরাসে মৃত্যু আরও ৩৮ জনের আইনজীবীদের করোনা চিকিৎসায় তিন হাসপাতাল করোনায় ২৪ ঘন্টায় ৪৩ জনের মৃত্যু ভার্চ‌্যুয়াল পদ্ধ‌তি‌তেই চল‌বে সারাদেশের অধস্তন আদাল‌তের বিচার কার্যক্রম। করোনায় ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৫৩ জনের মৃত্যু ইয়েলোতে নয়, রেড জোনেই থাকবে সাধারণ ছুটি লাল (রেড) ও হলুদ (ইয়োলো) জোনে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার। ‘রেড জোন ‘ হিসেবে চিহ্নিত যেসব এলাকা চে গুয়েভারার জীবনী করোনাভাইরাসে ২৪ ঘণ্টায় ৪৪ মৃত্যু সিপিবির প্রাথমিক বাজেট-প্রতিক্রিয়া করোনায় ২৪ ঘন্টায় সর্বোচ্চ ৪৬ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৩৪৭১ আরজ আলী মাতুব্বর কাজী নজরুল ইসলাম সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় হঠাৎ নীরার জন্য – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় করোনায় মৃত্যুর মিছিলে আরও ৩৭ জন ভার্চ্যুয়াল উপস্থিতির মাধ্যমে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের চেম্বার কোর্টে শুনানি চলবে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত। গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৩৭ আক্রান্ত ৩১৯০ করোনা পরিস্থিতিতে বাজেট ঘোষণার প্রাক্কালে সরকারের প্রতি সিপিবি লেখা আহবান প্রাক বাজেট কর্মসূচিতে যুব ইউনিয়নের দাবী অবিলম্বে এনজিও ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ করার দাবি জানিয়েছে সিপিবি ভাষাসৈনিক কমরেড মিরান উদ্দিন মাস্টারের মৃত্যুতে সিপিবির শোক করোনায় ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৪৫ জনের মৃত্যুর রেকর্ড মানুষ – কাজী নজরুল ইসলাম জোনিং করে লকডাউনের প্রস্তাবে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন এসএসসি : ফল পুনর্মূল্যায়নে রেকর্ডসংখ্যক আবেদন করোনায় ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৪২ আক্রান্ত ২৭৩৫ ঢাকার ৩৮ এলাকা আংশিক লকডাউন ঘোষণা করোনায় ২৪ ঘন্টায় সর্বোচ্চ ৪২ মৃত্যু রেকর্ড রাজধানীর দুই এলাকা দিয়ে কাল শুরু হচ্ছে জোলা ভিত্তিক লকডাউনের কাজ শ্রমিক ছাঁটাই করা হলে, আপনিও ছাঁটাই হয়ে যাবেন’- মন্টু ঘোষ বিজিএমইএ-র বক্তব্যে সিপিবির হুঁশিয়ারি শ্রমিক ছাঁটাইয়ের পরিণতি হবে ভয়াবহ করোনায় ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৩৫, আক্রান্ত ২৬৩৫ অমানবিক গার্মেন্ট মালিকরা –কে এম মিন্টু পোশাক কারখানায় শ্রমিক ছাঁটাইয়ের ঘোষনা মুনাফালোভী মালিকদের নগ্ন চরিত্রের বহিঃপ্রকাশ- টিইউসি। জুন থেকেই পোশাক কারখানায় শ্রমিক ছাঁটাই: রুবানা হক করোনা উপসর্গ দেখা দিলে কোথায় যাবেন জেনে নিন করোনা ভাইরাসে ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৩০ নতুন আক্রান্ত ২৮২৮ সিপিবির ঢাকা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ডা. সাজেদুল হক রুবেল করোনায় আক্রান্ত। করোনা মৃত্যুর মিছিলে আরো ৩৫, নতুন আক্রান্ত ২৪২৩ স্বাস্থ্যবিধি না মেনে শ্রমিক পরিবহন করায় ফ্যাক্টরিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা দিশাহীন ঘুরে ফেরা গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৩৭ এবং আক্রান্ত ২৬৯৫ পঙ্গপাল আতঙ্ক! দল বেঁধে হাজার হাজার পতঙ্গের হানা বাঁকুড়ায় সত্যের কালাম অন্তরেই–ইসরাত জাহান বর্তমান করোনা পরিস্থিতি এবং সরকারের উদাসীনতা বাস ভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে আগামী ২ জুন ২০২০ সারাদেশে বাম গণতান্ত্রিক জোটের পক্ষ থেকে মানববন্ধন, সমাবেশ বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হবে। “শেষ স্টেশন” নিপুন নগরী ব্লাক পেন্সিল — নিপুন নগরী দুর্ভাবনার দ্বিতীয় অধ্যায়– নিপুন নগরী চট্টগ্রামে প্রথমবারের মতো একজন করোনা রোগীর শরীরে প্লাজমা থেরাপি প্রয়োগ জেনে নিন প্লাজমা থেরাপি সম্পর্কে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশের লক্ষ্য নিয়ে কাজ চলছে এসএসসি এবং সমমান পরীক্ষার ফলাফল আগামী ৩১ মে প্রকাশিত হবে। অফিস, গণপরিবহণ চালুর সিদ্ধান্তে সিপিবির গভীর উদ্বেগ বাসের ৫০ শতাংশ আসন ফাঁকা থাকবে, চালু সোমবার ফুলকোর্ট সভা বাতিল, ১৮ বিচারপতির শপথ অনুষ্ঠান বিকেল ৩ টায় অধস্তন আদালত সমূহ ৩১ মে থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত চলবে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে। ৩১ মে থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত সুপ্রিমকোর্টের উভয় বিভাগ চলবে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে,১১ নতুন ভার্চুয়াল বেঞ্চ গঠন ৩১ মে ২০২০ থেকে সুপ্রিমকোর্টের উভয় বিভাগের অফিস এবং শাখা সমূহ খোলা ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৪০ জন, আক্রান্ত ২৫৪৫ জন অসীমে জ্ঞান , সসীমে জ্ঞানের অপমৃত্যু শয়তানের জবানবন্দি –আরজ আলী মাতুব্বর সত্যের সন্ধানে – আরজ আলী মাতুব্বর ১ম- ৩য় প্রস্তাব। ঈশ্বরলিপি- দালান জাহান
ঘোষণা :
সকল সম্মানিত লেখক - লেখিকাদের সবিনয়  দৃষ্টি আকর্ষণ করা হচ্ছে।  আমাদের এই ওয়েবসাইটে বিভিন্ন টপিকের উপর আপনাদের  বিভিন্ন প্রবন্ধ,  গল্প, উপন্যাস, কবিতা,  ভ্রমণ কাহিনী ইত্যাদি পাঠাতে পারবেন। আপনাদের সমস্ত মূল্যবান লেখা সমূহ আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। যারা আমাদের ওয়েবসাইটে লেখা পাঠাতে চান তারা নিম্নোক্ত ই -মেইল ঠিকানায় লেখা পাঠাতে পারবেন। অন্য কারো লেখা কপি করা গ্রহণযোগ্য হবে না। কোন প্রকারের অশ্লীল ভাষায় লেখা গ্রহণযোগ্য হবে না। লেখার সাথে কোন ছবি দিতে চাইলে সেই ছবিটা লেখার সাথে পাঠাবেন। লেখার নিচে আপনার নাম দিবেন। ই-মেইল ঠিকানা  atikur.bdco@gmail.com । কোন বিষয়ে এডমিনের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে আমাদের ফেসবুক পেজে মেসেজ পাঠাতে পারবেন  আমাদের  সাথে যোগাযোগ করতে কোনো প্রকার  সংকোচ বোধ করবেন না। আপনার প্রতিটি লেখা আমাদের কাছে অতি  মূল্যবান ।     আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

চে গুয়েভারার জীবনী

  • প্রকাশ : রবিবার, ১৪ জুন, ২০২০
  • ৮৭ বার পড়া হয়েছে

ডাক নাম: চে
জন্ম তারিখ: জুন ১৪, ১৯২৮
জন্ম স্থান: রোসারিও, আর্জেন্টিনা
মৃত্যু তারিখ: অক্টোবর ৯, ১৯৬৭
মৃত্যু কালীন বয়স:৩৯ বছর
মৃত্যু স্থান: La Higuera, বলিভিয়া
প্রধান সংগঠন: 26th of July Movement
এর্নেস্তো গেবারা দে লা সের্না (স্পেনীয় ভাষায় Ernesto Guevara de la Serna) বা চে গুয়েভারা (Che Guevara চে গেবারা) (জুন ১৪, ১৯২৮ – অক্টোবর ৯, ১৯৬৭) বিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে খ্যাতিমান সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবীদের অন্যতম।তার আসল নাম ‘এর্নেস্তো গেভারা দে লা সেরনা’। জন্মসুত্রে তিনি আর্জেন্টিনার নাগরিক। তিনি পেশায় একজন ডাক্তার ছিলেন এবং ফিদেল কাস্ত্রোর দলে প্রথমে দলের চিকিৎসক হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন ।কিন্তু পরবর্তীতে তিনি অনুকরনীয় এক বিপ্লবীতে পরিনত হন।যুবক বয়সে মেডিসিন বিষয়ে পড়ার সময় চে দক্ষিণ আমেরিকার বিভিন্ন অঞ্চলে ভ্রমণ করেন।যা তাকে অসহায় মানুষের দুঃখ কষ্ট অনুধাবন করার সুযোগ এনে দেয়। চে বুঝতে পারেন ধনী গরিবের এই ব্যবধান ধ্বংস করে দেবার জন্য বিপ্লব ছাড়া আর কোন উপায় নেই। তখন থেকেই তিনি মার্কসবাদ নিয়ে পড়ালেখা শুরু করেন এবং সচক্ষে এর বাস্তব প্রয়োগ দেখার জন্য গুয়াতেমালা ভ্রমন করেন।১৯৫৬ সালে মেক্সিকো থাকার সময় গুয়েভারা ফিদেল কাস্ত্রোর নেতৃত্বাধীন বিপ্লবী সগঠন ২৬শে জুলাই আন্দোলনে যোগদান করেন।১৯৫৯ সালে এই সগঠন কর্তৃক কিউবার ক্ষমতা দখলের পর তিনি রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন। এই সময় তিনি বিভিন্ন নিবন্ধ ও বই রচনা করেন।কিউবার মুক্তিযুদ্বে গেরিলা রনকৌশল সফল হবার পর চে ভাবেন ওই রননীতি ছড়িয়ে দিতে পারলে কমিউনিষ্ট শাষন প্রতিষ্টা করা যাবে সমগ্র লাতিন আমেরিকায়।এই ভাবনায় তিনি বেছে নেন বলিভিয়া আর আর্জেন্টিনাকে। প্রথমে বলিভিয়া সেখানে সফল হবার পর আর্জেন্টিনা। তার এই পরিকল্পনায় সর্বোত সহযোগিতা দেন তানিয়া কিন্ত শেষ পর্যন্ত সবই বিফলে যায়।মার্কিন সাংবাদিক ড্যানিয়েল জেমস লিখছেন তানিয়াকে নিয়োগ দিয়েছেন “ষ্ট্যাসি” নামে পূর্ব জার্মানির গোয়েন্দা সংগঠন এবং কেজিবি নামে সোভিয়েত রাশিয়ার গোয়েন্দা সংগঠন। তাদের উদ্দ্যেশ্য ছিল কাস্ত্রো ও চে’র ওপর নজরদারি করা। জেমসের মতে চে’র সাথে তানিয়ার প্রেম ছিল পুরোপুরি অভিনয়। চে’র মৃত্যুর জন্য সর্বোতভাবে তানিয়া দায়ী।তানিয়ার জন্ম আর্জেন্টিনার রাজধানী বুয়েনেস এয়ারসে ১৯৩৭ সালে ১৯শে নভেম্বর। তার পিতা ছিলেন জার্মানির রাজধানী বার্লিনের একজন অধ্যাপক, মা ছিলেন পোলিশ ইহুদি। নাৎসি দমন শুরু হলে তারা পালিয়ে চলে যান বুয়েনেস আইরিসে সেখানেই বসবাস করতে থাকেন স্থায়ীভাবে। তবে ১৯৫২ সালে তারা ফিরে আসেন পূর্ব জার্মানি। ১৫ বছরের তানিয়া নিয়মিত পাঠ নেন কম্যুনিজমের ওপর। বার্লিন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি মার্ক্সবাদের ওপর উচ্চতর ডিগ্রী নেন। শিক্ষার্থী জীবনে তিনি “দ্যা ফ্রি জার্মান ইয়ুথ” নামে একটি সংগঠনের সক্রিয় সদস্য ছিলেন।ওই সময় লাতিন আমেরিকা সফরে যাওয়া রাজনৈতিক নেতাদের দোভাষী হিসাবে কাজ করেন। ২১ বছর বয়সে যোগ দেন MFS এ। শুরু হয় গুপ্তচর জীবন। তানিয়া নাম বদলে হন তামারা। পরে বিভিন্ন দায়িত্ব পালনে যান মস্কো, প্রাগ, ভিয়েনায়।ওই সময় তিনি কেজিবির নজরে পড়েন। ওই সময় লাতিন আমেরিকায় কেজিবির গুপ্তচর সংকট ছিল। MFS কেজিবির কাছে তানিয়ার নাম প্রস্তাব করে। তানিয়াও সন্মতি জানায়। ১৯৫৯ সালে কিউবার ন্যাশনাল গর্ভমেন্ট ব্যাঙ্কের প্রেসিডেন্ট হিসাবে চে আসেন পূর্ব জার্মানি। উদ্দ্যেশ্য কাস্ত্রোর জন্য বৈদেশিক ঋন সংগ্রহ করা। MFS তখন ওই সুযোগে তানিয়াকে নিয়গ করে চে’র দোভাষী হিসাবে। তানিয়া কয়দিনের মধ্যে চের সাথে জড়িয়ে পরেন ব্যক্তিগত সম্পর্কে।১৯৬১ সালে মস্কোতে তানিয়াকে কঠোর প্রশিক্ষন দেয় কেজিবি। তারপর তাকে পাঠানো হয় হাভানায়, পূর্ব জার্মানিতে কিউবার ব্যালে নৃত্যশিল্পী দল এসেছিল তাদের সাথে একই বিমানে তানিয়া হাভানা যায় ওখানে চে’র ব্যাক্তিগত সুপারিশে চাকরি পান কিউবান শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে। শুধু তাই নয় কিউবার আধা সামরিক নারী বাহিনী গঠনেও তার ভুমিকা ছিল।রনকৌশলের মাধ্যমে বলিভিয়ার অভ্যুন্থান ঘটিয়ে ক্ষমতা দখলের প্লান করার পর তানিয়াকে বিশেষ দায়িত্ব দেন চে। সে দায়িত্ব অনেকখানি সাংগঠনিক আর অনেক খানি গুপ্তচরের। চে’র স্পাই হিসাবে লা-পাজ পৌছান তানিয়া। এখানে তিনি ভুমিকা নেন আমেরিকান-ইন্ডিয়ান লোক সংগীতের বিশারদ ও সিরামিক শিল্পী হিসাবে। স্থানীয় কম্যুনিষ্ট পার্টির সাথে সংযোগ স্থাপন করেন তানিয়া। বনাঞ্চলে লুকিয়ে থাকা গেরিলাদের সাথে বহিবিশ্বের যোগাযোগে মূখ্য ভুমিকা নেন তানিয়া। লা-পাজ থেকে নিয়মিত খাদ্য, ওষূধ, অস্ত্র নিয়মিত পাঠাতে থাকেন বনাঞ্চলে।এত দক্ষ স্পাই হবার পরও কিছু ভূল করে বসেন তানিয়া, নজরে পরে যান বলিভিয়ান গুপ্তচর সংস্থার।গোপনে তাকে অনুসরন করে সরকারী গোয়েন্দারা। ২৩ শে মার্চকে বিপ্লব ঘটানোর দিন হিসাবে ঠিক করেন চে। কিন্ত তার দশ দিন আগেই বলিভিয়ার সৈন্যরা আক্রমন চালায় বনে অবস্থানরত গেরিলাদের ওপর। ওই সংঘর্সে প্রান হারায় সাতজন শীর্ষ স্থানীয় গেরিলা। বিপ্লব ভেস্তে যায়। এরপর চার মাস বনে জঙ্গলে ঘুরে বেড়ান শেষে সৈন্য দের সাথে মুখোমুখি যুদ্বে বাকীরাও প্রান হারায়।তানিয়ার শেষ দিনগুলো ছিল খুবই কষ্টকর। বিপ্লব নষ্ট হবার জন্য চে সরাসরি তানিয়াকে দায়ী করেন। শুধু চে না দলের অন্যান্য গেরিলারাও তাকে বিশ্বাসঘাতক ভাবে। এ অবস্থাতেই তাদের সাথে তাকে থাকতে হয়। গেরিলাদের শেষ দলের সাথে মুসিকেরী নদী পার হবার সময় সৈন্যদের সাথে গোলাগুলিতে মারা যান তানিয়া। নদীতে পরে যান মৃত তানিয়া। সেখান থেকে আটদিন পর যখন তার মৃতদেহ উদ্বার করা হয় তখন আর চেনার উপায় ছিল না, পরিচয়পত্র আর পাশপোর্ট দেখে তাকে সনাক্ত করা হয়। এভাবেই জীবনাবসান ঘটে এক অসামান্য রূপসী স্পাইয়ের।চে ১৯৬৫ সালে মেক্সিকো ত্যাগ করেন।তার ইচ্ছা ছিল কঙ্গো-কিনশাসা ও বলিভিয়াতে সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা। বলিভিয়াতে থাকার সময় তিনি সি আই এ মদদপুষ্ট বলিভিয়ান বাহিনীর কাছে ধরা পড়েন।মৃত্যুর পর তাঁর শৈল্পিক মুখচিত্রটি একটি সর্বজনীন প্রতিসাংস্কৃতিক প্রতীক এবং এক জনপ্রিয় সংস্কৃতির বিশ্বপ্রতীকে পরিণত হয়। ১৯৬৭ সালের ৯ই অক্টোবর, বলিভিয়ার শহর লা হিগুয়েরাতে বলিভিয়ার সেনাবাহিনী তার মৃত্যদন্ড কার্যকর করে।আমেরিকাই শুধু নয়,গোটা বিশ্বের শোষিত বঞ্চিত মুক্তিকামী মানুষের নেতা মহান বিপ্লবী কমরেড চে গুয়েভারা।কাপুরুষোচিতভাবে তাকে হত্যা করেছিল বলিভীয় কর্তৃপক্ষ। এ ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার জন্য তার মৃতদেহ গুম করে ফেলেছিল তৎকালীন বলিভীয় সরকার।মৃত্যুর পর তিনি সমাজতন্ত্র অনুসারীদের জন্য অনুকরনীয় আদর্শে পরিণত হন।কিউবার এই আর্জেন্টাইন বংশোদ্‌ভূত বিপ্লবীর মুখচ্ছবি এখন তাদের নিজেদের নেতা ক্যাস্ত্রোর মতই প্রাণবন্ত।চে’ তাই ফিরে ফিরে আসে বিপ্লবে।তবুও জেগে থাকে এই অমর প্রাণ, দেশে দেশে বিপ্লবের প্রতীক হয়ে।মৃত্যুর আগে চে বলেন,
”আমি জানি তোমরা আমাকে গুলি করে মারবে। আমি জীবিতাবস্থায় বেরুতে পারবো না। ফিদেলকে বলো এই পরাজয় বিপ্লবের শেষ হয়ে যাওয়া নয়। বিপ্লবের বিজয় হবেই। সালেইদাকে (চের স্ত্রী) বলো ব্যাপারটি ভুলে যেতে, সুখী হতে বলো, বাচ্চাদের লেখাপড়ার ব্যাঘাত না ঘটে, আর সৈন্যদেরকে বলো, যেন আমার দিকে ঠিকভাবে লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে।”আজ লক্ষ প্রাণের আওয়াজ উঠেছে, চে তোমার মৃত্যু আমাকে অপরাধী করে দেয়, তোমার মৃত্যু নেই যেমন মৃত্যু নেই বিপ্লবের। তুমি জেগে আছো অমর প্রাণ।চে তোমার মৃত্যু আমাকে অপরাধী করে দেয়…-সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়
চে, তোমার মৃত্যু আমাকে অপরাধী করে দেয়
আমার ঠোঁট শুকনো হয়ে আসে, বুকের ভেতরটা ফাঁকা
আত্মায় অভিশ্রান্ত বৃষ্টিপতনের শব্দশৈশব থেকে বিষণ্ন দীর্ঘশ্বাস
চে, তোমার মৃত্যু আমাকে অপরধী করে দেয়-
বোলিভিয়ার জঙ্গলে নীল প্যান্টালুন পরা
তোমার ছিন্নভিন্ন শরীর
তোমার খোলা বুকের মধ্যখান দিয়ে
নেমে গেছে
শুকনো রক্তের রেখা
চোখ দুটি চেয়ে আছে
সেই দৃষ্টি এক গোলার্ধ
থেকে চুটে আসে অন্য গোলার্ধেচে, তোমার মৃত্যু আমাকে অপরাধী করে দেয়।
শৈশব থেকে মধ্য যৌবন পর্যন্ত দীর্ঘ দৃষ্টিপাত
আমারও কথা ছিল হাতিয়ার নিয়ে তোমার পাশে দাঁড়াবার
আমারও কথা ছিল জঙ্গলে কাদায় পাথরের গুহায়
লুকিয়ে থেকে
সংগ্রামের চরম মুহূর্তটির জন্য প্রস্তুত হওয়ার
আমারও কথা ছিল রাইফেলের কুঁদো বুকে চেপে প্রবল হুঙ্কারে
ছুটে যাওয়ার
আমারও কথা ছিল ছিন্নভিন্ন লাশ ও গরম রক্তের ফোয়ারার মধ্যে
বিজয়-সঙ্গীত শোনাবার-কিন্তু আমার অনবরত দেরি হয়ে যাচ্ছে!
এতকাল আমি এক, আমি অপমান সয়ে মুখ নিচু করেছি
কিন্তু আমি হেরে যাই নি, আমি মেনে নিই নি
আমি ট্রেনের জানলার পাশে, নদীর নির্জন রাস্তায়, ফাঁকা
মাঠের আলপথে, শ্মশানতলায়
আকাশের কাছে, বৃষ্টির কাছে বৃক্ষের কাছে,
হঠাৎ-ওঠাঘূর্ণি ধুলোর ঝড়ের কাছে
আমার শপথ শুনিয়েছি, আমি প্রস্তুত হচ্ছি, আমি
সব কিছুর নিজস্ব প্রতিশোধ নেবো
আমি আমার ফিরে আসবো
আমার হাতিয়অরহীন হাত মুষ্টিবদ্ধ হয়েছে, শক্ত হয়েছে চোয়াল,
মনে মনে বারবার বলেছি, ফিরে আসবো!
চে, তোমার মৃত্যু আমাকে অপরাধী করে দেয়-
আমি এখনও প্রস্তুত হতে পারি নি, আমার অনবরত
দেরি হয়ে যাচ্ছে
আমি এখনও সুড়ঙ্গের মধ্যে আধো-আলো ছায়ার দিকে রয়ে গেছি,
আমার দেরি হয়ে যাচ্ছেচে,
তোমার মৃত্যু আমাকে অপরাধী করে দেয়!

মন্তব্য করুন

আপনার লেখা প্রকাশ করুন

লেখা গুলো ই-মেইলে পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

এই বিষয়টি আপনার যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

মন্তব্য বন্ধ আছে।

এই বিভাগের আরো লেখা
© All rights reserved © 2019 www.atikurbd.com
Customized BY NewsTheme