1. atikur.bdco@gmail.com : admin :
চিরঞ্জীব বঙ্গবন্ধু - www.atikurbd.com
ঘোষণা :
বাংলার বাঘ শের ই বাংলা শীতে বিচারপতি-আইনজীবীদের পরতে হবে কালো কোট আমেরিকার নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কিছু তথ্যঃ- আওয়ামী যুবলীগ এর ৪৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ৩ রা নভেম্বর বাঙালী জাতির ইতিহাসে এক বেদনাবিধুর দিন আইন, বিবেক, নীতির বাতিঘর ও জাতীয় ঐক্যের প্রতিক হিসাবে সকলের প্রিয়জন ব্যারিষ্টার রফিক-উল হক অধস্তন আদালতে অবকাশকালীন ছুটি কমলো ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই তালিকাভুক্তির দাবিতে প্রেস ক্লাবে শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের আমরণ অনশন ডিসেম্বরে সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন ছুটি বহাল বন্ধ হোক বিচারহীনতা এবং ধর্ষন গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সুস্থতার হার ৭৭ শতাংশ ছাড়িয়েছে অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির বর্তমান সভাপতি ও জ্যেষ্ঠ আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবু মোহাম্মদ (এএম) আমিন উদ্দিন অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট মাহবুবে আলম আর আমাদের মাঝে নেই ১৬ বছর কারাভোগের পর ফাঁসির আসামি খালাস বার কাউন্সিলে অ্যাডভোকেট তালিকাভুক্তির লিখিত পরীক্ষা স্থগিত অ্যাটর্নি জেনারেলের অবস্থার অবনতি, নেয়া হয়েছে আইসিউতে জামিন সংক্রান্ত বিষয়ে বিচারিক আদালতকে হাইকোর্টের চার নির্দেশনা ২৬ সেপ্টেম্বরই হচ্ছে বার কাউন্সিলের লিখিত পরীক্ষা অ্যাটর্নি জেনারেল করোনা আক্রান্ত, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি “উন্নয়নের রোলমডেল শেখ হাসিনা” আপিল বিভাগে নিয়োগ পেলেন দুই বিচারপতি করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৩১৬ সোমবার থেকে শ্রম ভবনে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণা আন্দোলনরত ড্রাগন গ্রুপের শ্রমিকদের আদালত সুপ্রিম কোর্ট বারে তলবি সভার আহ্বানে ৩১ আইনজীবীর আবেদন চিরঞ্জীব বঙ্গবন্ধু করোনায় ২৪ ঘন্টায় আরো ৪১ জনের মৃত্যু এবং নতুন শনাক্ত আরো ৩৮২২ সুপ্রিম কোর্টের সব অবকাশকালীন ছুটি বাতিল জেনে নিন ১০(দশ)টি শ্রম আদালতের অধিক্ষেত্র আগামীকাল কমরেড জ্ঞান চক্রবর্তীর ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী হে জ্যোতির্ময় ভার্চ্যুয়াল পদ্ধতিতে সপ্তাহে ৩ দিন চলবে চেম্বার আদালত করোনায় আরও ৩৪ জনের জনের মৃত্যু কোর্টের ভেতর সামাজিক দূরত্ব মানলেও সেকশনে হুড়োহুড়ি খুলনায় পাটকল শ্রমিকদের আন্দোলন কর্মসূচিতে সিপিবি’র সংহতি ও একাত্মতা প্রকাশ জামিন-স্থগিতাদেশের কার্যকারিতার মেয়াদ বাড়লো ৩ দফা দাবিতে শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের সমাবেশ আগামী ২৩ আগষ্ট মাস্ক পরতে বাধ্য করা এবং সচেতনতা বাড়াতে মোবাইল কোর্ট বিকাশ দিয়ে উবারে পেমেন্ট সুবিধা চালু উচ্চ আদালতে করোনাকালীন ড্রেস কোড নির্ধারণ বার কাউন্সিলে লিখিত পরীক্ষা চেয়ে রিটের আদেশ আগামী সপ্তাহে উচ্চ আদালতে মামলা পরিচালনায় সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা আগামী বুধবার থেকে খুলছে সুপ্রিম কোর্ট, ৩৫ টি ভার্চুয়াল এবং ১৮ টি রেগুলার বেঞ্চ গঠন করোনায় আরো ৩৯ জনের মৃত্যু সাবমেরিন ক্যাবলের সংযোগ বিচ্ছিন্ন, ইন্টারনেটে ধীরগতি দুর্নীতি অভিযোগ পেলে কঠোর ব্যবস্থা,বেঞ্চ অফিসারদের বদলির সিন্ধান্ত শ্রমিক নেতা খাইরুল মামুন মিন্টুর ৪০ তম জন্মদিন আজ কেউ কথা রাখেনি – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় দেশে করোনায় ৩৩৩৩ জনের মৃত্যু নিয়মিত আদালতের পাশাপাশি ভার্চুয়াল মাধ্যমেও চলবে দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট করোনায় ২৪ ঘন্টায় আরো ৩৯ জনের মৃত্যু করোনায় ২৪ ঘন্টায় আরো ৩৩ জনের মৃত্যু ফুলকোর্ট সভা বৃহস্পতিবার: সুপ্রিম কোর্টের স্বাভাবিক বিচারকার্যক্রম প্রসঙ্গ করোনায় ২৪ ঘন্টায় আরো ৫০ জনের মৃত্যু জাহিদ হাসান ঈদ স্মৃতি — জাহিদ হাসান করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩০ জনের মৃত্যু বন্যা পরিস্থিতিতে সিপিবির গভীর উদ্বেগ সরকারের যথাযথ উদ্যোগের অভাবে হাহাকার বাড়ছে মনের কথা – আতিকুর রহমান করোনায় ২৪ ঘন্টায় আরো ২৮ জনের মৃত্যু ৫ আগস্ট থেকে খুলছে সব নিম্ন আদালত ঈদের পর ৬ আগস্ট থেকে চেম্বার আদালত ভার্চ্যুয়ালি চলবে মোঃ দেলোয়ার হোসেন ঈদুল আযহা — মোঃ দেলোয়ার হোসেন ★★প্রসঙ্গঃ কোরবানি★★ লেখা প্রতিযোগিতা করোনা ভাইরাসের কারণে চার মাস বন্ধ থেকে ঈদুল আযহার পরে খুলছে বাংলাদেশের আদালত: আইনমন্ত্রী অবিলম্বে নিয়মিত আদালত চালু করতে প্রধান বিচারপতির কাছে আবেদন আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির লিখিত পরীক্ষা ২৬ সেপ্টেম্বর করোনায় আরো ৩৫ জনের মৃত্যু বার কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ : ৩৫৯০ জনের লিখিত পরীক্ষা চেয়ে রিট অবকাশকালীন ছুটিতে হাইকোর্টে ১২ ভার্চ্যুয়াল বেঞ্চ গঠন ঈদের ছুটিতে আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মস্থল ত্যাগ না করার নির্দেশ আলহাজ্ব মোঃ জয়নাল আবেদীন খান মান্না দে’র কালজয়ী গান কফি হাউজের অন্যতম চরিত্র ঢাকার মঈদুল এখন গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় চিকিৎসাধীন। বঙ্গভবন থেকে গণভবন মানবপ্রাচীর’ কর্মসূচি সফল করার আহ্বান জানিয়েছে সিপিবি গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র সাভার আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির উদ্যোগে মানববন্ধন পৃথিবীর পথে পথে স্বাস্থ্যমন্ত্রী, মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের অপসারণের দাবিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয় ঘেরাও বিষন্নতায় ঘেরা এই পৃথিবী করোনায় আরো ৪১ জনের মৃত্যু তালিকাভুক্তির দাবিতে বার কাউন্সিলের সামনে শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের অবস্থান, অসুস্থ-৭ এখনই স্বাভাবিক বিচার ব্যবস্থা ফিরছে না আদালতে। করোনায় আরো ৫৫ জনের মৃত্যু রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের সিন্ধান্ত বাতিল করে জাতীয়স্বার্থে পাটকল চালু রেখে আধুনিকায়ন ও লাভজনক কর -প্রগতিশীল সংগঠনসমূহ বিক্ষোভ সমাবেশে সিপিবি’র নেতৃবৃন্দ রাষ্ট্রীয় পাটকলসমূহ বন্ধ ঘোষণা মুক্তিযুদ্ধের অঙ্গীকারের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা একাধিকবার বিদ্যুৎ-জ্বালানির দাম বাড়ানোর স্বার্থে সংসদে বিল উত্থাপনের প্রতিবাদ সিপিবির আহুত ভালোবাসা – মোহাম্মদ জাফর সাদেক সরকারের গণবিরোধী সিদ্ধান্তের বিরদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে সিপিবি’র ডাক ২৪ ঘন্টায় করোনায় আরো ৪০ জনের মৃত্যু পৃথিবীর সৃষ্টি রহস্য – পর্ব ১ রাষ্ট্রায়ত্ব পাটকল বন্ধের নয়া ষড়যন্ত্রে বাম জোটের উদ্বেগ ও প্রতিবাদ দালান জাহান মোঃ জাফর সাদেক জন্মদাগ – মোঃ জাফর সাদেক করোনায় ২৪ ঘন্টায় আরো ৩৯ জনের মৃত্যু ভার্চুয়াল আদালত অব্যাহত রাখতে সংসদে খসড়া আইন উত্থাপন সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর ৮৫-তে পদার্পণ করোনাকালে শ্রমিক ছাঁটাই-নির্যাতন বন্ধের দাবি সাংগ্রাম, গৌরব , উন্নয়ন, ও ঐতিহ্যের ৭১ বছর ইতিহাস…..
শিরোনাম :
বাংলার বাঘ শের ই বাংলা শীতে বিচারপতি-আইনজীবীদের পরতে হবে কালো কোট আমেরিকার নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কিছু তথ্যঃ- আওয়ামী যুবলীগ এর ৪৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ৩ রা নভেম্বর বাঙালী জাতির ইতিহাসে এক বেদনাবিধুর দিন আইন, বিবেক, নীতির বাতিঘর ও জাতীয় ঐক্যের প্রতিক হিসাবে সকলের প্রিয়জন ব্যারিষ্টার রফিক-উল হক অধস্তন আদালতে অবকাশকালীন ছুটি কমলো ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই তালিকাভুক্তির দাবিতে প্রেস ক্লাবে শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের আমরণ অনশন ডিসেম্বরে সুপ্রিম কোর্টের অবকাশকালীন ছুটি বহাল বন্ধ হোক বিচারহীনতা এবং ধর্ষন গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সুস্থতার হার ৭৭ শতাংশ ছাড়িয়েছে অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির বর্তমান সভাপতি ও জ্যেষ্ঠ আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবু মোহাম্মদ (এএম) আমিন উদ্দিন অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট মাহবুবে আলম আর আমাদের মাঝে নেই ১৬ বছর কারাভোগের পর ফাঁসির আসামি খালাস বার কাউন্সিলে অ্যাডভোকেট তালিকাভুক্তির লিখিত পরীক্ষা স্থগিত অ্যাটর্নি জেনারেলের অবস্থার অবনতি, নেয়া হয়েছে আইসিউতে জামিন সংক্রান্ত বিষয়ে বিচারিক আদালতকে হাইকোর্টের চার নির্দেশনা ২৬ সেপ্টেম্বরই হচ্ছে বার কাউন্সিলের লিখিত পরীক্ষা অ্যাটর্নি জেনারেল করোনা আক্রান্ত, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি “উন্নয়নের রোলমডেল শেখ হাসিনা” আপিল বিভাগে নিয়োগ পেলেন দুই বিচারপতি করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৩১৬ সোমবার থেকে শ্রম ভবনে লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি ঘোষণা আন্দোলনরত ড্রাগন গ্রুপের শ্রমিকদের আদালত সুপ্রিম কোর্ট বারে তলবি সভার আহ্বানে ৩১ আইনজীবীর আবেদন চিরঞ্জীব বঙ্গবন্ধু করোনায় ২৪ ঘন্টায় আরো ৪১ জনের মৃত্যু এবং নতুন শনাক্ত আরো ৩৮২২ সুপ্রিম কোর্টের সব অবকাশকালীন ছুটি বাতিল জেনে নিন ১০(দশ)টি শ্রম আদালতের অধিক্ষেত্র আগামীকাল কমরেড জ্ঞান চক্রবর্তীর ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী হে জ্যোতির্ময় ভার্চ্যুয়াল পদ্ধতিতে সপ্তাহে ৩ দিন চলবে চেম্বার আদালত করোনায় আরও ৩৪ জনের জনের মৃত্যু কোর্টের ভেতর সামাজিক দূরত্ব মানলেও সেকশনে হুড়োহুড়ি খুলনায় পাটকল শ্রমিকদের আন্দোলন কর্মসূচিতে সিপিবি’র সংহতি ও একাত্মতা প্রকাশ জামিন-স্থগিতাদেশের কার্যকারিতার মেয়াদ বাড়লো ৩ দফা দাবিতে শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের সমাবেশ আগামী ২৩ আগষ্ট মাস্ক পরতে বাধ্য করা এবং সচেতনতা বাড়াতে মোবাইল কোর্ট বিকাশ দিয়ে উবারে পেমেন্ট সুবিধা চালু উচ্চ আদালতে করোনাকালীন ড্রেস কোড নির্ধারণ বার কাউন্সিলে লিখিত পরীক্ষা চেয়ে রিটের আদেশ আগামী সপ্তাহে উচ্চ আদালতে মামলা পরিচালনায় সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা আগামী বুধবার থেকে খুলছে সুপ্রিম কোর্ট, ৩৫ টি ভার্চুয়াল এবং ১৮ টি রেগুলার বেঞ্চ গঠন করোনায় আরো ৩৯ জনের মৃত্যু সাবমেরিন ক্যাবলের সংযোগ বিচ্ছিন্ন, ইন্টারনেটে ধীরগতি দুর্নীতি অভিযোগ পেলে কঠোর ব্যবস্থা,বেঞ্চ অফিসারদের বদলির সিন্ধান্ত শ্রমিক নেতা খাইরুল মামুন মিন্টুর ৪০ তম জন্মদিন আজ কেউ কথা রাখেনি – সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় দেশে করোনায় ৩৩৩৩ জনের মৃত্যু নিয়মিত আদালতের পাশাপাশি ভার্চুয়াল মাধ্যমেও চলবে দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট করোনায় ২৪ ঘন্টায় আরো ৩৯ জনের মৃত্যু করোনায় ২৪ ঘন্টায় আরো ৩৩ জনের মৃত্যু ফুলকোর্ট সভা বৃহস্পতিবার: সুপ্রিম কোর্টের স্বাভাবিক বিচারকার্যক্রম প্রসঙ্গ করোনায় ২৪ ঘন্টায় আরো ৫০ জনের মৃত্যু জাহিদ হাসান ঈদ স্মৃতি — জাহিদ হাসান করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩০ জনের মৃত্যু বন্যা পরিস্থিতিতে সিপিবির গভীর উদ্বেগ সরকারের যথাযথ উদ্যোগের অভাবে হাহাকার বাড়ছে মনের কথা – আতিকুর রহমান করোনায় ২৪ ঘন্টায় আরো ২৮ জনের মৃত্যু ৫ আগস্ট থেকে খুলছে সব নিম্ন আদালত ঈদের পর ৬ আগস্ট থেকে চেম্বার আদালত ভার্চ্যুয়ালি চলবে মোঃ দেলোয়ার হোসেন ঈদুল আযহা — মোঃ দেলোয়ার হোসেন ★★প্রসঙ্গঃ কোরবানি★★ লেখা প্রতিযোগিতা করোনা ভাইরাসের কারণে চার মাস বন্ধ থেকে ঈদুল আযহার পরে খুলছে বাংলাদেশের আদালত: আইনমন্ত্রী অবিলম্বে নিয়মিত আদালত চালু করতে প্রধান বিচারপতির কাছে আবেদন আইনজীবী অন্তর্ভুক্তির লিখিত পরীক্ষা ২৬ সেপ্টেম্বর করোনায় আরো ৩৫ জনের মৃত্যু বার কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ : ৩৫৯০ জনের লিখিত পরীক্ষা চেয়ে রিট অবকাশকালীন ছুটিতে হাইকোর্টে ১২ ভার্চ্যুয়াল বেঞ্চ গঠন ঈদের ছুটিতে আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মস্থল ত্যাগ না করার নির্দেশ আলহাজ্ব মোঃ জয়নাল আবেদীন খান মান্না দে’র কালজয়ী গান কফি হাউজের অন্যতম চরিত্র ঢাকার মঈদুল এখন গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় চিকিৎসাধীন। বঙ্গভবন থেকে গণভবন মানবপ্রাচীর’ কর্মসূচি সফল করার আহ্বান জানিয়েছে সিপিবি গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র সাভার আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির উদ্যোগে মানববন্ধন পৃথিবীর পথে পথে স্বাস্থ্যমন্ত্রী, মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের অপসারণের দাবিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয় ঘেরাও বিষন্নতায় ঘেরা এই পৃথিবী করোনায় আরো ৪১ জনের মৃত্যু তালিকাভুক্তির দাবিতে বার কাউন্সিলের সামনে শিক্ষানবিশ আইনজীবীদের অবস্থান, অসুস্থ-৭ এখনই স্বাভাবিক বিচার ব্যবস্থা ফিরছে না আদালতে। করোনায় আরো ৫৫ জনের মৃত্যু রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধের সিন্ধান্ত বাতিল করে জাতীয়স্বার্থে পাটকল চালু রেখে আধুনিকায়ন ও লাভজনক কর -প্রগতিশীল সংগঠনসমূহ বিক্ষোভ সমাবেশে সিপিবি’র নেতৃবৃন্দ রাষ্ট্রীয় পাটকলসমূহ বন্ধ ঘোষণা মুক্তিযুদ্ধের অঙ্গীকারের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা একাধিকবার বিদ্যুৎ-জ্বালানির দাম বাড়ানোর স্বার্থে সংসদে বিল উত্থাপনের প্রতিবাদ সিপিবির আহুত ভালোবাসা – মোহাম্মদ জাফর সাদেক সরকারের গণবিরোধী সিদ্ধান্তের বিরদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে সিপিবি’র ডাক ২৪ ঘন্টায় করোনায় আরো ৪০ জনের মৃত্যু পৃথিবীর সৃষ্টি রহস্য – পর্ব ১ রাষ্ট্রায়ত্ব পাটকল বন্ধের নয়া ষড়যন্ত্রে বাম জোটের উদ্বেগ ও প্রতিবাদ দালান জাহান মোঃ জাফর সাদেক জন্মদাগ – মোঃ জাফর সাদেক করোনায় ২৪ ঘন্টায় আরো ৩৯ জনের মৃত্যু ভার্চুয়াল আদালত অব্যাহত রাখতে সংসদে খসড়া আইন উত্থাপন সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর ৮৫-তে পদার্পণ করোনাকালে শ্রমিক ছাঁটাই-নির্যাতন বন্ধের দাবি সাংগ্রাম, গৌরব , উন্নয়ন, ও ঐতিহ্যের ৭১ বছর ইতিহাস…..

চিরঞ্জীব বঙ্গবন্ধু

  • প্রকাশ : সোমবার, ২৪ আগস্ট, ২০২০
  • ১৯৬ বার পড়া হয়েছে

আমরা গর্ব করি ভাষার জন্য। বাংলা ভাষাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা দেওয়ার জন্য ১৯৫২ সালে আমরা রক্ত দিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেছি। সেই সময়ের আইনের ছাত্র শেখ মুজিবুর রহমান প্রত্যক্ষভাবে যুক্ত থেকে ভাষা আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন। লালন ফকির, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম আমাদের ভাষা- শিক্ষা- সংস্কৃতির সারথি। তাঁদের অবদানে বাংলা ভাষাসাহিত্য- সংস্কৃতি বিশ্বের অগুনীত মানুষের সম্মান ও শ্রদ্ধা অর্জন করেছে।

এ জাতির ইতিহাসে একটি অনিবার্য নাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সেই ছাত্র জিবন থেকে একজন নেতা হয়ে ওঠার মাঝে তাঁকে দীর্ঘ সংগ্রামমুখর পথ পাড়ি দিতে হয়েছে। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা হয়েছে অসংখ্য বার। এখনো হচ্ছে। প্রকৃত পক্ষে এমন একজন নেতার সম্পূর্ণ জীবন আলেক্ষ নিয়ে ব্যপক গবেষনার প্রয়োজন রয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধৃ শেখ মুজিবুর রহমান বাঙ্গালী জাতির জন্য কি আত্বত্যাগ করেছেন, তাঁর সংক্ষিপ্ত বিবরণ নিম্নে দেওয়া হলঃ-
কারাগারের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর প্রথম পরিচয় ১৯৩৮ সাল, যখন তিনি গোপালগঞ্জ মিশন স্কুলের ছাত্র, তাও আবার হত্যা মামলার আসামী হিসেবে। তৎকালীন বাংলার প্রধানমন্ত্রী শেরেবাংলা এ,কে ফজলুল হক ও শ্রমমন্ত্রী হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দি গোপালগঞ্জ সফরে আসবেন। তাঁদের আমন্ত্রন জানানোর জন্য একটি স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী গঠন করা হবে। দায়িত্ব পড়লো বঙ্গবন্ধুর ওপর। তিনি তাঁর সমবয়সী হিন্দু, মুসলমান সবাইকে নিয়ে গঠন করলেন একটি স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী। কদিন পর দেখা গেল স্বেচ্ছা সেবক বাহিনী থেকে হিন্দু স্বেচ্ছাসেবকরা কেটে পড়ছে। জানা গেল তাদের কংগ্রেস থেকে নিষেধ করা হয়েছে। কারণ শেরেবাংলা ও সোহরাওয়ার্দি মুসলিমলীগ মন্ত্রীসভার মন্ত্রী, অতএব তাঁদের সংবর্ধনা দেওয়া যাবে না। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে মারামারি হয় এবং রামপদ দত্ত নামের একজন ছরিকাহত হলে বঙ্গবন্ধু ও অন্যান্য মুসলমান ছাত্রদের নামে হত্যা মামলা হয় এবং ঐ মামলায় বঙ্গবন্ধৃসহ অনেককে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে সেই মামলা থেকে বঙ্গবন্ধু খালাস পান।
তাঁর প্রথম কন্যা সন্তান আজকের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বয়স যখন মাত্র ৫ মাস ১৪ দিন তখন তিনি ভাষা আন্দোলনে নেতৃত্ব দিতে গিয়ে ১১ই মার্চ ১৯৪৮ সালে রাজনৈতিক কারনে কারাবরণ করেন। ছাত্রদের তীব্র আন্দোলনের মুখে মুক্তি পান ১৫ই মার্চ। একই বছরে ১১ই সেপ্টেম্বর শেখ হাসিনার বয়স যখন ১১ মাস ১৪ দিন তখন বঙ্গবন্ধু আবারও কারাবরণ করেন। ছাড়া পান ১৯৪৯ সালের ২১ জানুয়ারী। ৩রা মার্চ ১৯৪৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেনীর কর্মচারিদের আন্দোলনের এক পর্য়ায়ে কর্মবিরতির ঘোষনায় উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বঙ্গবন্ধু ১৯ মার্চ কর্মচারিদের আন্দোলনে একাত্বতা ঘোষনা করে তাদের আন্দোলনে সমর্থন দেন। ২৯ মার্চ বঙ্গবন্ধু সহ অনেক ছাত্রনেতাকে জরিমানা ও বহিস্কার সহ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ১৭ই এপ্রিলের মধ্যে জরিমানা পরিশোধ এবং আর আন্দোলনে অংশগ্রহন না করার শর্তে মুচলেকা দিয়ে বহিস্কারাদেশ প্রত্যাহার করার শর্ত দেওয়া হয়, অন্যথায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ী বহিস্কারের ঘোষনা দেওয়া হয়। বঙ্গবন্ধু মুচলেকা না দিয়ে ১৯ এপ্রিল এই অগণতান্ত্রিক সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবিতে ভিসি’র বাসভবনের সামনে অনশন কর্মসূচি পালন করেন। পুলিশের অনুরোধ শত্বেও কর্মসূচি প্রত্যাহার না করায় তাঁকে ১৯ এপ্রিল শেখ হাসিনার বয়স যখন ১ বছর ৬ মাস ২২ দিন তখন তাঁকে আটক করা হয় এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্থায়ী বহিস্কার করা হয়। ফলে আইন বিষয়ে মাষ্টার্স তাঁর আর করা হয়নি। বঙ্গবন্ধু ২৭ জুন জেল থেকে ছাড়া পান। এর মধ্যে ২৩ জুন ১৯৪৯ সালে আওয়ামীলীগ প্রতিষ্ঠিত হলে জেলে থাকা অবস্থায় বঙ্গবন্ধু আওয়ামীলীগের ১ নং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হোন। ঐ সময় ছাত্রলীগের আহবায়ক নঈমউদ্দীন আহমদ সহ অনেক ছাত্রনেতা বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ ও অভিভাবকদের চাপে গোপনে মুচলেকা দিয়ে বহিস্কারাদেশ প্রত্যাহার করান। একারনে ১৬ই এপ্রিল নঈমউদ্দীন আহম্মদকে ছাত্রলীগের আহবায়ক পদ খেকে বহিস্কার করে শামসুল হক কে ভারপ্রাপ্ত আহবায়কের দায়ীত্ব দেওয়া হয়। কিন্তু ২৩শে জুন আওয়ামীলীগ প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনে শামসুল হকের পরিবর্তে ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত আহবায়কের দায়ীত্ব পান দবিরুল ইসলাম। দবিরুল ইসলাম তখন হেবিয়াস কার্পাস মামলার আসামী একারনে তাঁকে এই মামলায় নিয়মীত হজিরা দিতে হতো। কিছুদিন পর দবিরুল ইসলাম এই মামলায় গ্রেপ্তার হলে ফরিদপুরের মোল্লা জালাল উদ্দীনকে ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক করা হয়। বঙ্গবন্ধুর সভাপতিত্বে ২৬ সেপ্টেম্বর ছাত্রলীগের প্রথম সম্মেলনে জেলে থাকা অবস্খায় ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হোন দবিরুল ইসলাম। সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হোন খালেক নেওয়াজ খান। সেপ্টেম্বর মাসে বঙ্গবন্ধু ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে খাদ্য দুর্ভিক্ষের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে ২৭ দিন কারাগারে ছিলেন যখন তাঁর দ্বিতীয় সন্তান শেখ কামালের বয়স মাত্র ১ মাসেরও কম। পরে ছাড়া পেয়ে আবার ২৫ অক্টোবর শেখ কামালের বয়স যখন ২ মাস ২১দিন তখন বঙ্গবন্ধু গ্রেপ্তার হয়ে ৬৩ দিন পর জেল থেকে ২৭ ডিসেম্বর ছাড়া পান। চলমান খাদ্য দুর্ভিক্ষের মধ্যেই ১৯৫০ সালের জানুয়ারী মাসের প্রথম দিকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর ঢাকা সফরের সংবাদের প্রতিবাদে স্বারকলিপি দিতে গিয়ে মাওলানা ভাষানী সহ বঙ্গবন্ধু ৫০ সালে ১লা জানুয়ারী গ্রেপ্তার হোন যখন শেখ কামালের বয়স মাত্র ৪ মাস ২৭ দিন। শেখ হাসিনার বয়স ও তখন মাত্র ২ বছর ৩ মাস ৪ দিন। জেলে থাকা অবস্থায় ভাষা আন্দোলন চুড়ান্ত রুপ নিলে বঙ্গবন্ধু জেলে বসেই আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার বার্তা পাঠান এবং ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারী বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্র ভাষা হিসাবে ঘোষনার দাবিতে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে ছাত্ররা রাজপথে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ে। পুলিশের গুলিতে সালাম, বরকত, রফিক, শফিক, জব্বার সহ অনেকে শহীদ হোন। বঙ্গবন্ধু জেলে বসে ১৪ই ফেব্রুয়ারী থেকে বাংলা ভাষার দাবীতে অনশন শুরু করেন এবং টানা ১৩ দিন অনশন করে তাঁর স্বাস্থ ভেঙ্গে পড়লে ২৬ ফেব্রুয়ারী তাঁকে মুক্তি দেওয়া হয়। আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক তখনো জেলে। ফলে জেল থেকে মুক্ত হওয়ার পর বঙ্গবন্ধু আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়ীত্ব পান। দায়ীত্ব পেয়েই বঙ্গবন্ধু আওয়ামীলীগকে সুসংগঠিত করতে দিনরাত পরিশ্রম করতে লাগলেন। শামসুল হক সাহেব জেলে প্রচন্ড শারীরিক নির্যাতন এবং সদ্য বিবাহীতা স্ত্রী ও সদ্য প্রসুত শিশু সন্তানের দুশ্চিন্তায় এবং পরবর্তিতে তাকে ত্যাগ করে তার স্ত্রীর বিদেশ চলে যাওয়ার খবরে মানসিক ভাবে এতটায় ভেঙ্গে পড়েন যে ১৯৫৩ সালে জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার সময় তিনি পুরোপুরি একজন মানসিক রোগী হয়ে যান। এ অবস্থায় তিনি কিছুদিন রাজনীতিতে থাকলেও মানসিক বিকৃতির কারনে রাজনীতি থেকে ছিটকে পড়েন। তাই ৫৩ সালের সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হোন। শেরেবাংলা, মাওলানা ভাষানী এবং সোহরাওয়ার্দীর নেতৃত্বে ৫৩ সালে যুক্তফ্রন্ট গঠনে বঙ্গবন্ধু গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করেন। ৫৪ সালের ১০ই মার্চের নির্বাচনে ২৩৭ আসনের মধ্যে যুক্তফ্রন্ট ২২৩ টি আসনে বিজয় লাভ করে। আওয়ামীলীগ ১৪৩ আসন পেয়ে একক ভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে।

মুসলিমলীগ মাত্র ৯ টি আসনে জয় পায়। ফজলুল কাদের চৌধুরী সতন্ত্র নির্বাচন করে বিজয়ী হয়ে পরে মুসলিমলীগে যোগ দিয়ে বিরোধীদলীয় নেতা নির্বাচিত হোন। কেন্দ্রীয় সরকারের ষড়যন্ত্রে সংখ্যাগরিষ্ঠ দল আওয়ামীলীগের সাথে আলোচনা না করে শেরেবাংলা এ,কে ফজলুল হক ৩ এপ্রিল ৪ সদস্যের আংশিক মন্ত্রীসভা গঠন করেন। ফলে যুক্তফ্রন্টের মধ্যে অন্তর্দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়। পরে ১৯৫৪ সালের ১৫ই মে পূর্ণ মন্ত্রীসভা গঠিত হলে বঙ্গবন্ধু প্রাদেশিক সরকারের বন ও কৃষি মন্ত্রী হিসাবে শপথ নেন। আদমজীতে বাঙ্গালী- অবাঙ্গালী দাঙ্গার জেরে ২৯ মে কেন্দ্রীয় সরকার যুক্তফ্রন্ট মন্ত্রীসভা ভেঙ্গে দেন। বঙ্গবন্ধু ৩০ মে করাচি থেকে ঢাকায় ফিরে গ্রেফতার হোন যখন তাঁর দ্বিতীয় পুত্র শেখ জামালের বয়স মাত্র ১ মাস ৩ দিন। ৫৪ সালের ২৩শে ডিসেম্বর তিনি ছাড়া পান। ৫৫ সালে তিনি পূনরায় আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে অসাম্প্রদায়িক চিন্তা চেতনাকে ধারণ করে আওয়ামী মুসলিমলীগ থেকে মুসলিম শব্দটি বাদ দিয়ে আওয়ামীলীগ নামকরন করা হয়। আওয়ামীলীগ প্রতিষ্ঠায় যার ভূমিকা অগ্রগন্য হিসেবে প্রতিষ্ঠিত সেই হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দি সাহেব কিন্তু মুসলীম শব্দটি বাদ দেওয়ার বিরোধী ছিলেন। ৫৭ সদস্য বিশিষ্ট আওয়ামীলীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় ২৬ জন সদস্য মুসলিম শব্দটি বাদ দেওয়ার বিপক্ষে এবং মাওলানা ভাষানী ও বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে সংখ্যাগরিষ্ঠ ৩১ জন সুসলিম শব্দটি বাদ দেওয়ার পক্ষে থাকায় সংখ্যাগরিষ্ঠ মতামত গৃহীত হয়। ৫৫ সালে বঙ্গবন্ধু আইন পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়ে ৫৫ সালের ১৬ই সেপ্টেম্বর মন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। কিন্তু একই সাথে মন্ত্রী ও দলের সাধারণ সম্পাদক হওয়ায় সাংগঠনিক সম্পাদক অলি আহাদের নেতৃত্বে দলের কয়েকজন সদস্য এর বিরোধীতা করে দলে বিরোধ সৃষ্টির অপপ্রয়াস চালান। মূলত অলি আহাদের দলের সাধারণ সম্পাদক হতে চাওয়ার আকাঙ্খা থেকেই এই বিরোধের সুত্রপাত। বিচক্ষণ বঙ্গবন্ধু এ কারনে দল ও দেশের সার্থে ১৯৫৭ সালে ৩০ মে মন্ত্রসভা থেকে পদত্যাগ করে শুধু দলের সাধারণ সম্পাদকের দায়ীত্বে থাকেন। কারন বঙ্গবন্ধু জানতেন বাঙ্গালীর স্বাধীকার আদায়ের দাবী বাস্তবায়নে একটি শক্তিশালী সংগঠনের কোন বিকল্প নেই। সংগঠনকে শক্তিশালী করার জন্যই তিনি মন্ত্রীত্ব ছেড়ে দলের সাধারণ সম্পাদকের পদ ধরে রাখলেন। ৫৮ সালের ৭ই অক্টোবর রাষ্ট্রপতি ইসকান্দার মির্জা মার্শাল ল জারী করে রাজনীতি নিষিদ্ধ করলেন এবং সেনা প্রধান মেজর জেনারেল আইয়ুব খানকে প্রধান সামরিক আইন প্রসাষক নিযুক্ত করলেন। অল্প কয়েকদিন পরে জেনারেল আইয়ুব খান রাষ্ট্রপতি ইসকান্দার মির্জাকে হটিয়ে ২৭ অক্টোবর নিজে রাষ্ট্রপতি হোন। এর আগে ১১ই অক্টোবর বঙ্গবন্ধুকে গ্রেপ্তার করা হয়। ১৪ মাস পর বঙ্গবন্ধু মুক্তি পেলেও জেলগেট থেকে আবারও গ্রেপ্তার হোন। পরে টানা ৩ বছরেরও বেশী সময় জেলে থাকার পর ৭ই ডিসেম্বর ১৯৬১ সালে মুক্তি পান। ১১ অক্টোবর ৫৮ সালে যখন গ্রেপ্তার হোন তখন বঙ্গবন্ধু কনিষ্ঠ কন্যা শেখ রেহানার বয়স মাত্র ১ বছর ২৯ দিন। জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর বঙ্গবন্ধু জেনারেল আইয়ুবের কঠোর সমালোচনা করতে থাকেন, কিন্তু প্রকাশ্য রাজনীতি নিষিদ্ধ থাকায় বঙ্গবন্ধু গোপনে রাজনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত রাখেন। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে স্বাধীকার ও স্বাধীনতা আন্দোলনকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য ছাত্রনেতা কাজী আরেফ আহমেদ, সিরাজুল আলম খান এবং আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে পূর্ব বাংলা বিপ্লবী ছাত্র সংস্থা ( নিউক্লিয়াস) গঠিত হয়।

কিছুদিন পর ৬২ সালের ৬ই ফেব্রুয়ারী বঙ্গবন্ধু পুনরায় গ্রেপ্তার হলে ২রা জুন আন্দোলনের মুখে মার্শাল ল উইথড্র করার পর ১৮ই জুন বঙ্গবন্ধু মুক্তি পান। মুক্ত হয়েই বঙ্গবন্ধু হোসের শহীদ সোহরাওয়ার্দির নেতৃত্বে National Democratic Front (NDF) গঠনে ভূমিকা রাখেন। ৬২ সালের ৩১শে ডিসেম্বর সোহরাওয়ার্দি সাহেব অসুস্থ হলে চিকিৎসার জন্য ৬৩ সালের ১৯ মার্চ লেবাননের রাজধানী বৈরুত যান। সুস্থ হয়ে লন্ডনে তাঁর পুত্রের বাসায় ওঠেন এবং ৬ মাস সেখানে অবস্থান করেন। এ সময় বঙ্গবন্ধু লন্ডনে তাঁর সাথে দেখা করতে যান। কিছুদিন পর আবার অসুস্থ হয়ে পড়লে পুনরায় বৈরুত যান এবং সেখানকার হোটেল কন্টিনেন্টালে ৫ই ডিসেম্বর ১৯৬৩ সালে রহস্যজনক ভাবে তাঁর মৃত্যু ঘটে। এই মৃত্যুতে জেনারেল আইয়ুব খানের হাত রয়েছে বলে অনেকের ধারনা। সোহরাওয়ার্দির মৃত্যুর পর NDF তার কার্যকারিতা হারায়। সোহরাওয়ার্দির মৃত্যুর পর ৬৪ সালের ২৫ জানুয়ারী বঙ্গবন্ধুর বাসভবনে আওয়ামীলীগ কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় আওয়ামীলীগকে পুনরুজ্জীবনের সিদ্ধান্ত হয়। এসভায় মাওলানা আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশ সভাপতি এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। সামরিক শাসক আইয়ুব-এর বিরুদ্ধে বিরোধী দলগুলোর সমন্বয়ে নির্বাচনী জোট কঅপ ( COP) Combined Opposition Party গঠিত হয়। ১৯৬৫ সালের ২ জানুয়ারীর রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে কঅপ প্রার্থী মিস ফাতেমা জিন্নাহ অনেক ভোটের ব্যবধানে জেনারেল আইয়ুবের কাছে হেরে যান। নির্বাচনের ১৪ দিন পূর্বে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেপ্তার করা হয়। ১৯৬৭ সালের ৫ ফেব্রুয়ারী লাহোরে বিরোধী দলগুলোর সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু ৬ দফা প্রস্তাব পেশ করলে তাঁকে বিচ্ছিন্নতাবাদী হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। প্রতিবাদে বঙ্গবন্ধু সম্মেলন বর্জন করে ঢাকায় ফিরে আসেন। ১৮ই মার্চ আওয়ামীলীগের কাউন্সিল অধিবেশনে ৬ দফা প্রস্তাব সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়। এই সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু প্রথমবারের মত আওয়ামীলীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে ৬ দফার পক্ষে সমর্থন আদায়ের জন্য জেলায় জেলায় জনসভা করেন। ৩ মাসে বঙ্গবন্ধু ৩২ টি জনসভা করে ৮ বার গ্রেপ্তার হোন। ৮ মে নারায়নগঞ্জের শ্রমিক সমাবেশ শেষে বঙ্গবন্ধু আবার গ্রেপ্তার হোন। ১৯৬৮ সালে ৩রা জানুয়ারী আইয়ুব সরকার বঙ্গবন্ধুকে ১নং আসামী করে মোট ৩৫ জন বাঙালির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ এনে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা দায়ের করে জেলে বন্দী থাকা অবস্থায় ১৮ই জানুয়ারী তাঁর উপর পুনরায় গ্রেফতার আদেশ জারি করা হয়। দীর্ঘ আন্দোলন শেষে ১৯৬৯ এর গণঅভ্যত্থানের মাধ্যমে ৬৯ এর ২২ ফেব্রুয়ারী বঙ্গবন্ধুকে মুক্তি দিতে বাধ্য হোন জেনারেল আইয়ুব খান। ৬৭ সালের ১৭ নভেম্বর শেখ হাসিনার বিয়ের সময়ও বঙ্গবন্ধু জেলে ছিলেন। গণ অভ্যুত্থানে ২৫ মার্চ জেনারেল আইয়ুবের পতন ঘটে। সেনা প্রধান জেনারেল ইয়াহিয়া খান রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসেন। বঙ্গবন্ধুর দাবী ও আন্দোলনের মুখে ১৯৭০ এর ৭ই ডিসেম্বর জাতীয় পরিষদ ও ১৭ই ডিসেম্বর প্রাদেশীক পরিষদের নির্বাচন দিতে বাধ্য হোন জেনারেল ইয়াহিয়া খান।

নির্বাচনে আওয়ামীলীগ জাতীয় পরিষদে ৩১০ আসনের মধ্যে ১৬৭ আসন পেয়ে নিরুঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। কিন্তু শান্তিপূর্নভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর না করে টালবাহানা শুরু করেন জেনারেল ইয়াহিয়া খান। ৭ই মার্চ রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু তাঁর ঐতিহাসিক ভাষনে স্বাধীনতার প্রাথমিক ঘোষনা দেন। ১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চ নিরস্ত্র বাঙ্গালীর উপর হায়েনার মত ঝাঁপিয়ে পড়ে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী। ২৫শে মার্চ রাত ১২ টা ২০ মিনিটে অর্থাৎ ২৬শে মার্চের প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু গ্রেপ্তার হওয়ার পূর্বে আনুষ্ঠানিক ভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষনা দেন।

শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধ। ঐ রাত্রেই ১:৩০ মিনিটের দিকে বঙ্গবন্ধুকে বন্দী করে পাকিস্তানের কারাগারে রাখা হয়। ২৭শে জুলাই শেখ হাসিনার পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়ের জন্মের সময় বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানের কারাগারে বন্দী ছিলেন। দীর্ঘ প্রায় সাড়ে ৯ মাস কারাগারে বন্দী থাকার পর ১৬ই ডিসেম্বর বাংলাদেশের বিজয়ের পর ১৯৭২ সালের ৮ই জানুয়ারী বঙ্গবন্ধুকে মুক্তি দেওয়া হয়। লন্ডন ও ভারত হয়ে ১০ জানুয়ারী বঙ্গবন্ধু তাঁর স্বপ্নের বাংলাদেশে ফিরে আসেন। কিন্তু স্বাধীন দেশে রাষ্ট্র পরিচালনার মাত্র সাড়ে ৩ বছরের মাথায় দেশীও ও আন্তর্জাতিক চক্রান্তে বঙ্গবন্ধু স্ব-পরিবারে ঘাতকের নির্মম বুলেটের আঘাতে নিহত হোন।

আমরা জানি তবুও মহৎ মানুষের মৃত্য নাই। দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাসের মৃত্যুর পর রবীন্দ্রনাথের কবিতার সেই দুটি বিখ্যাত লাই আজ আমার মনে পড়ছে বার বার। বঙ্গবন্ধুর উদ্দেশ্যেই আজ সেই লাইন দুটি অন্তরের সব শ্রদ্ধা আর ভালবাসার দরদ ঢেলে দিয়ে মনে মনে উচ্চারণ করছিঃ

“এনেছিলে সাথে করে মৃত্যহীন প্রান
মরণে তাহাই তুমি করে গেলে দান।”
চিরঞ্জীব বঙ্গবন্ধু;
তোমাকে হাজারো সালাম।

———— বীর মুক্তিযোদ্ধা

আলহাজ্ব মোঃ জয়নাল আবেদীন খান
সাবেক এম,পি-৭৩ মেহেরপুর-১

 198 total views,  2 views today

মন্তব্য করুন

আপনার লেখা প্রকাশ করুন

লেখা গুলো ই-মেইলে পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

এই বিষয়টি আপনার যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

মন্তব্য বন্ধ আছে।

এই বিভাগের আরো লেখা
© All rights reserved © 2019 www.atikurbd.com
Customized BY NewsTheme